মাদক, অস্ত্র ও ক্যাসিনো ব্যবসায় জড়িত থাকার অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবলীগ নেতা গোলাম কিবরিয়া (জি কে) শামীমের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জি কে বিল্ডার্স অ্যান্ড কম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড সরকারি যতগুলো প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করছে, ক্রয়নীতি (পিপিআর) অনুসরণ করে সব প্রকল্পের কাজ বাতিল করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় গৃহায়ণ ও গণপূর্তমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শ ম রেজাউল করিমকে উদ্দেশ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জি কে বিল্ডার্স যেসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে, সেগুলো যাতে মুখ থুবড়ে না পড়ে থাকে। যত দ্রুত সম্ভব এই ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে প্রকল্পের কাজ বাতিল করে নতুন কোনো ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে দায়িত্ব দিতে হবে।’ বাতিল প্রক্রিয়াটি সরকারি ক্রয়নীতি অনুযায়ী করতেও নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী। চলমান মাদক, ক্যাসিনো ও টেন্ডারবাজির বিরুদ্ধে শুদ্ধি অভিযান আরো জোরদার হবে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। সভায় উপস্থিত সরকারের একাধিক নীতিনির্ধারক কালের কণ্ঠকে এসব তথ্য জানান।

সভায় উপস্থিত একাধিক কর্মকর্তা কালের কণ্ঠকে জানান, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন যেসব প্রকল্প জি কে বিল্ডার্স বাস্তবায়ন করছে সেসব প্রকল্পের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রথম আলোচনা শুরু করেন পরিকল্পনা সচিব নূরুল আমিন। তিনি বলেন, চলতি অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) দুই লাখ কোটি টাকার বেশি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান (জি কে বিল্ডার্স) বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ১৭টির মতো প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। ওই সব প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দ আছে তিন হাজার কোটি টাকারও বেশি। প্রকল্পগুলোর বাস্তবায়ন যদি শ্লথ হয়, তার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এডিপি বাস্তবায়নের ওপর। তাই যেসব নতুন প্রকল্প একনেক সভায় অনুমোদন দেওয়া হচ্ছে, সেসব প্রকল্পের কাজ দ্রুত শুরু করার তাগিদ দেন সচিব। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জি কে বিল্ডার্স যতগুলো প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে, সব চুক্তি বাতিল করা হবে। সেখানে নতুন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান নিয়োগ দেওয়া হবে। এই কাজটি দ্রুত শেষ করতে গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

একনেকসভা শেষে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান প্রধানমন্ত্রীর বেশ কয়েকটি নির্দেশনা তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রীর উদ্ধৃতি দিয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, পাবনার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মতো দেশের দক্ষিণাঞ্চলে আরেকটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র করার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। এরই মধ্যে তিন-চারটি স্থান বাছাই করা হয়েছে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য। তবে এখনো চূড়ান্ত করা হয়নি। দেশে নতুন করে আর ইউক্যালিপটাস গাছ না লাগানোর নির্দেশও দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। দিনাজপুর, রংপুর, কুড়িগ্রামসহ দেশের বরেন্দ্র অঞ্চলে ইউক্যালিপটাস গাছ কিভাবে পরিবেশ ধ্বংস করছে এবং পানির স্তর আরো নিচে নামিয়ে দিচ্ছে সে বিষয়টি গতকাল একনেকসভায় আলোচনা হয়েছে। ইউক্যালিপটাস গাছ না লাগিয়ে পানি কম শোষণ করে এমন গাছ লাগানোর কথা বলেছেন তিনি। দেশের সব মহাসড়কে টোল আদায় করতে ফের প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন বলে জানান পরিকল্পনামন্ত্রী।

সংবাদ ব্রিফিংয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন, দেশের সরকারি-বেসরকারি সব মেরিন একাডেমি একই শিক্ষা কারিকুলামের আওতায় এনে শিক্ষার মানোন্নয়নে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। দেশে কতসংখ্যক বিদেশি শ্রমিক কাজ করছে এবং বিদেশের মাটিতে কতসংখ্যক বাংলাদেশি কাজ করছে, তার সঠিক হিসাব বের করারও নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। আগামী ২০২১ সালে জনশুমারি ও গৃহ গণনা প্রকল্পে যাতে সবাই গণনায় আসে সেটি নিশ্চিত করার কথা বলেছেন তিনি।

এদিকে গতকাল একনেক সভায় ১১ হাজার ৪৬৭ কোটি টাকা ব্যয়ে মোট ১০টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে খরচ হবে আট হাজার ২৭১ কোটি টাকা। আর উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে তিন হাজার ১৯৬ কোটি টাকা পাওয়ার আশা করছে সরকার। 

News Page Below Ad